1. admin@esaharanews.com : news :
সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০১ পূর্বাহ্ন

প্রশ্ন কবিতায় কবি সিরাজ উদ দৌল্লাহর অনুরাগ স্মৃতি কথা

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১
  • ১২৪২ বার পড়া হয়েছে

শম্ভু মৈত্র ও অরিন্দম বরের সাথে সুর মিলেয়ে ই বলতে হয় এমন কবিতা নিয়ে মন্তব্য করার নূন্যতম সাহিত্য বোধ আমার নেই ——- শুধু মাত্র এ টুকু বলব, কবিতাটি যত বার পড়েছি ততবার ই মনে হয়েছে বারংবার পড়ি।যার মাঝে রয়েছে প্রাচীন থেকে বর্তমান প্রেম কাহিনির সুনিপন উপস্থাপনা।রয়েছে সাহিত্যের চরম রসবোধ,
রয়েছে কাব্যের প্রতিটি স্তরের চমৎকার ধাপগুলো অনুসরণ।সব মিলিয়ে অপূর্ব এক সৃষ্টি কর্ম।
এটা শুধু একজন কবির নিছক কল্পনা প্রসূত কথা মালা নয় এটা একটা আধুনিক সার্থক কবির মানস সরোবরে প্রস্ফুটিত ১০১ টি দুর্লভ নীল পদ্মও বটে।কেননা প্রাচীন মধ্যযুগের বৈষ্ঞব পদাবলী, মঙ্গল কাব্যে, রোমান্টিক প্রনয় উপখ্যানের কবিগন কখনো অনুবাদের অনুকরণ ধর্ম নিরপেক্ষতার আড়ষ্টতার আশেপাশে থেকে কলম কে মুক্তি দিতে পারেনি।আর আধুনিক একজন সার্থক কবি তাঁর কবিতার ছন্দের তালে মানবতার মুক্তির ও সকল অনুভূতির দ্বার খোলা রেখে ই কবিতা লিখবেন, সেখানে স্থান পাবে যুগান্তরের ইতিহাস,ঐতিহ্য, রাজনীতি,সমাজনীতি,নারীর সাতন্ত্রবাদ আর সেটা ই আধুনিক মহান কবি সিরাজ উদ দৌল্লার লেখনীর অন্যতম অলংকার।
কবির ১৫ টি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হলেও রোমান্টিক কবিতার সংখ্যা ছিল খুব ই নগন্য।প্রকৃতি প্রেমিক কবির কবিতায় দেশ মা মাটি মানুষের কথাই বেশী ফুটে উঠেছে।মা মাটি মানুষের কবি হিসেবে স্বকৃতিও এসেছে তাঁর।কবির ছন্দ গাঁথা বাংলা ও ইংরেজী কবিতা গুলি আমাদের একদিকে যেমন স্মরণ করিয়ে দিয়েছে শেক্স পিয়ার,ওয়ার্স ওয়ার্থ,পি বি শেলী,জন মিল্টন,জন কিটস,ইতালিয়ান কবি ফেরদৌসী ও দান্তের কথা তেমনি স্মরণ করিয়ে দিয়েছে মাইকেল,রবীন্দ্র,নজরুল জীবনানন্দ দাস ও বন্দে আলী মিঞাঁর কথা।
তবে ইদানিং কবি লিখেছেন বেশ কিছু রোমান্টিক কবিতা–যেখানে ফুটে উঠেছে তাঁর পাকা হাতের ছাপ।
ছন্দ গাঁথা কথা মালায় কবির মানস প্রতিমার প্রতি প্রকাশিত হয়েছে গভীর অনুরাগ,অনুভূতি ও হৃদয়ের বন্ধনের কথা।
“এই বাংলার মুক্ত বাতাসে
শ্যামল আর সবুজের আবেশে
একাকার হয়ে তুমি আমি দুজনে
অটুট রব হৃদয়ের বন্ধনে”।
কবির মানস প্রতিমার প্রতি তাঁরি অনুরাগ যেন বেঁচে থাকে এর ই আকুল মিনতি ও গভীর অনুভূতি বারংবার ব্যক্ত করেছেন তিনি প্রশ্ন কবিতায়।রাধা কৃষ্ঞ ইউসুফ জুলেখা রবীন্দ্র কাদম্বরী ও মমতাজ শাহজাহানের অমর অনুরাগ স্মৃতিতে তাঁর মানসী যেন তাঁকে বরণ করে লয় এই আকুতি প্রকাশ করেছেন তিনি তাঁরি প্রতি।কল্পনা ডোরে কবির লেখা তারি মানসীর পরশে হয়ে উঠুক ছন্দময়—-এই প্রত্যাশা পাঠককুলের।কবির কথায়,
” জাগে যদি অনুরাগে পূর্ণ জ্যোতি
এতে কি হে কার,এত ক্ষতি”???
কবি হৃদয়ে অনুরণিত হয়েছে এক সংশয় তাঁরি মানসি যদি জেগে নাহি উঠে তবে অনাগত কবি আজিকার কবি জ্বলেছে বিরহ তাপিত হৃদয়ে বলে করিবেন বন্দনা গীতি।
“মানস প্রতিমা যদি নাহি উঠে জেগে
নাইবা যদি করে গান আমারি বাগে
তবু গাহিবে গান আমারে লয়ে
জ্বলে ছিল কবি এক বিরহ তাপিত হৃদয়ে”।
কবির একান্ত আন্তরিক শুভাকাঙ্খী দুই জন সালমা ফেরদৌসী ও আশ্রাফি জাহান সনি। আশ্রাফি জাহান সনি কবির সম্পর্কে বলেন তাঁর ইংরেজী ও রোমান্টিক বাংলা কবিতা গুলি আমাদের কে ইংরেজী সাহিত্যের কবি পি বি শেলী ও জন কিটসের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।তিনি বলেন,কবি সিরাজ উদ দৌল্লাহ মানস পট সৃষ্টির কবি।আপন মানস পটে তিনি অবলীলায় রচে যান কোন বিমূর্ত মায়াবী বৈপরীত্বমূলক অস্তিত্ব।তাঁর লেখনীতে পাঠক সমাজ গঠন করে নিজস্ব আল্পনা যেখানে কবির প্রতি জেগে উঠে নতুন অনুরাগ।সৃষ্ট আল্পনার ছোয়ায় সুখকর পরিবর্তন হয় মনোমন্দিরে।
তবে প্রশ্ন কবিতায় কবির সংশয় ভুল।তাপিত হৃদয়ে নয়,বন্ধুত্ব প্রীতির বন্ধনে কবি চিরদিন বেঁচে থাকবেন আমাদের অন্তরে।প্রশ্ন কবিতা পড়ে সালমা ফেরদৌসী বলেছেন,
” হে কবি কেন,তাপিত হৃদয়ে
সাগরের জল কি হে,গিয়েছে শুকায়ে
এই মনে প্রীতি যত আছে
অটুট রবে,সকলি যাবে তব কাছে”।
তরুণ প্রতিভাধর কবি অরিন্দম বর লিখেছেন বৈষ্ঞব আদি কবিগন প্রাচীন ধর্ম নির্ভর চরিত্র গুলো নিয়ে নিজের মনের কল্পনার মানস প্রতিমাকে রাধা চরিত্রে মেখে মেখে কবিতা লিখতো —–এর ই বাস্তব নিদর্শন হলো মধ্যযুগের বৈষ্ঞব পদাবলী।আর এ সব বিশ্লেষন করে আধুনিক কবি গুরু লিখে ছিলেন।
“সত্য করে কহো মরে হে বৈষ্ঞব কবি
কোথা তুমি পেয়ে ছিলে এ প্রেম ছবি!
কোথা তুমি শুনে ছিলে এতো গান
বিরহ তাপিত হেরি কাহার নয়ান,
রাধিকার অশ্রু আঁখি পড়ে ছিল মনে???”
মূলত কবিচিত্রের আবহমান কল্পনার মানসীদের অনুপ্রেরণায় যুগে যুগে সাহিত্যের ঝুলিটি পরিপূর্ণতা পেয়ে ছিল পাচ্ছে এবং পাবে।আমি জানি আমাদের প্রিয় মহাকবি সিরাজ উদ দৌল্লাহ স্যারও এ সব কবিদের ব্যতিক্রম নয়।তাই তো তাঁর তীক্ষ্ণ প্রেম পরিনয়ের মসির আঁআচড়ে আধুনিক মানব অন্দরের অন্দর মহলের বেড়ার বেড়ি ডিঙিয়ে সে কল্পনার মানসীটি উঁকি দিয়েছেন বার বার——-বেঁচে থাক সে মানস প্রতিমা জেগে থাক সে প্রেমের মসিধারা অনন্তকাল।
চলতে থাকুক কবির মানবতার ও অনুরাগের দুর্দান্ত
মসিধার। কবির শুভাকাঙ্খীদের প্রতিশ্রুতিতে কেটে গেছে পাঠক কুলের সংশয়।আমাদের পাশাপাশি তাদের হৃদয়েও কবি বেঁচে থাকবেন অজর অক্ষয় অমর হয়ে।কবির সকলি তাঁরা লবে অনুরাগ ভরে আর কবি হৃদয়ে চেতনা অনুভূতিতে এবং তাঁর লেখনিতে সদা জাগ্রত থাকুক তাঁর দুই শুভাকাঙ্খী চির অমর হউক কবির কল্পনার মানুষ টি——এই প্রত্যাশা।
ঈ/নি : স্বপন বিশ্বাস

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত